Please wait...

[bt_section layout=”boxed” top_spaced=”topSmallSpaced” bottom_spaced=”bottomSmallSpaced” skin=”light” full_screen=”no” vertical_align=”btMiddleVertical” divider=”yes” back_image=”” back_color=”#ffffff” back_video=”” video_settings=”” parallax=”” parallax_offset=”” animation=”” animation_back=”” animation_impress=”” el_id=”” el_class=”” el_style=”” responsive=””][bt_row][bt_column width=”1/1″][bt_hr top_spaced=”topSmallSpaced” bottom_spaced=”bottomSmallSpaced” transparent_border=”noBorder” el_class=”” el_style=”” responsive=””][/bt_hr][bt_header superheadline=”আপনার প্রশ্নের উত্তর খুঁজুন” headline=”সচরাচর জিজ্ঞাসা” headline_size=”large” dash=”bottom” dash_style=”btAccentDash” subheadline=”প্রশ্ন এবং উত্তর” el_class=”” el_style=””][/bt_header][/bt_column][/bt_row][/bt_section][bt_section layout=”boxed” top_spaced=”not-spaced” bottom_spaced=”not-spaced” skin=”light” full_screen=”no” vertical_align=”inherit” divider=”no” back_image=”” back_color=”#ffffff” back_video=”” video_settings=”” parallax=”” parallax_offset=”” animation=”” animation_back=”” animation_impress=”” el_id=”” el_class=”” el_style=”” responsive=””][bt_row][bt_column width=”1/1″][bt_hr top_spaced=”topSmallSpaced” bottom_spaced=”bottomSmallSpaced” transparent_border=”noBorder” el_class=”” el_style=”” responsive=””][/bt_hr][bt_dropdown title=”কাকে বলে ঠোঁটকাটা বা তালুকাটা ?” dd_content=”ঠোঁটকাটা হলো উপরের ঠোঁটের ভাগ বা ফাঁক হয়ে যাওয়া । এই ফাঁকটি হতে পারে ঠোঁটের একপাশে বা দু’পাশে খুব ছোট আকৃতিতে অথবা নাক পর্যন্ত ।
তালুকাটা হচ্ছে মুখগহ্বর তালুর ভিবক্তি/ফাটল বা ফাঁক, এটি শুধুমাত্র আল-জিহবা (Uvula), আল-জিহবা ও নরম তালু (Soft Palate) বা আল-জিহবা, নরম তালু এবং হাঁর দ্বারা গঠিত সক্ত তালু (Hard Palate) সহ একসাথে হতে পারে । বিকৃতির তীব্রতা মাত্রাগত তারতম্য হয় ।
ঠোঁটকাটা ও তালুকাটা দু’টোই যেকোন একটি হতে পারে ।” el_class=”” el_style=”” responsive=””][/bt_dropdown][bt_hr top_spaced=”topSmallSpaced” bottom_spaced=”bottomSmallSpaced” transparent_border=”noBorder” el_class=”” el_style=”” responsive=””][/bt_hr][bt_dropdown title=”এই বিকৃতি কি সরানো সম্ভব ?” dd_content=”অবশ্যই, সরানো সম্ভব । বিকৃতি যে ধরনের হোক, শল্য- চিকিতসায় তা সহজেই সেরে যায় । অবশ্য, এই চিকিৎসা আই বিষয়ে বিশেষ প্রশিক্ষনপ্রাপ্ত Plastic Surgeon –কেই করতে হবে । প্লাস্টিক সার্জন ছাড়াও অন্যান্য বিষয়ের চিকিৎসকের ভূমিকা বিদ্যমান ।” el_class=”” el_style=”” responsive=””][/bt_dropdown][bt_hr top_spaced=”topSmallSpaced” bottom_spaced=”bottomSmallSpaced” transparent_border=”noBorder” el_class=”” el_style=”” responsive=””][/bt_hr][bt_dropdown title=”কতবার/কতদিনের চিকিৎসার প্রয়োজন ?” dd_content=”যদি আপনার শিশুর একদিকে ঠোঁটকাটা থাকে তবে তাকে সারিয়ে দিতে একবার অস্ত্রোপচারই যথেষ্ট হবে । শিশুর চেহারা এবং কথা-বলা স্বাভাবিক হয়ে যাবে এবং কয়েক বছর পরে কাটা দাগটাও প্রায় বোঝাই যাবে না । একইভাবে, যখন তালুতে বিভক্তি থাকে , সেটা একবার অস্ত্রোপচারের মাধ্যমেই সারিয়ে তলা সম্ভব । তবে বাচ্চার কথা শিখানোর জন্য প্রশিক্ষনের প্রয়োজন হতে পারে ।
যদি আপনার শিশুর ঠোঁটকাটা ও তালুকাটা উভয়ই থাকে, তা হলে দুটি বা তিনটি অস্ত্রোপচারের প্রয়োজন হবে , ঐ বিভক্তি সম্পূর্ন বন্ধ করে দেবার জন্যে । খুবই গুরুতর বিকৃতি থাকলে আপনার শিশু স্বাভাবিক শিশুর থকে পৃথকভাবে কথা বলতে পারে , সেই ক্ষেত্রে তার অবশ্যই বাক-চিকিৎসা (Speech therapy) প্রয়োজন আছে । এর সঙ্গে নিয়মিত একজন Orthodontist কেউ দেখানো প্রয়োজন হবে ।” el_class=”” el_style=”” responsive=””][/bt_dropdown][bt_hr top_spaced=”topSmallSpaced” bottom_spaced=”bottomSmallSpaced” transparent_border=”noBorder” el_class=”” el_style=”” responsive=””][/bt_hr][bt_dropdown title=”কত শিশুর এরকম হয় ?” dd_content=”বাংলাদেশে প্রতি বছর আনুমানিক ৫০০০ নতুন শিশু এই ধরনের বিকৃতি নিয়ে জন্মগ্রহন করে ।” el_class=”” el_style=”” responsive=””][/bt_dropdown][bt_hr top_spaced=”topSmallSpaced” bottom_spaced=”bottomSmallSpaced” transparent_border=”noBorder” el_class=”” el_style=”” responsive=””][/bt_hr][bt_dropdown title=”এই বিকৃতির কারন কি ? ‘এটি আমার দোষ’ ?” dd_content=”জন্মগত ঠোঁটকাটা ও তালুকাটা কী কারনে হয় তা পরিষ্কারভাবে এখনো জানা যায়নি । ধারনা করা হয় যে, নিচের কারনগুলোর জন্য ঠোঁটকাটা ও তালুকাটা শিশুর জন্ম নেয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়, যেমন –
১. ভিটামিন ‘ এ ‘র বিশেষভাবে গর্ভধারণের ১ম দু’মাসে ফলিক এসিডের ঘাটতি ।
২. গর্ভধারনের প্রথম ৩ মাসের মধ্যে কোন কোন ঔষধ যেমন কৃমিনাশক ঔষধ বা কড়া ডোজের এন্টিবায়োটিক গ্রহণ করা অথবা ক্ষতিকারক দ্রব্য দ্বারা আক্রান্ত হলে ।
৩. পানীয় জলে আর্সেনিক দূষণ ।
৪. বংশগত এবং
৫. গর্ভধারনের প্রথম ৩ মাসের মধ্যে মায়ের জ্বর বা সংক্রমণ হলে অথবা মা প্রচন্ড মানসিক চাপের মধ্যে থাকলে ।
মনে রাখবেন বাবা-মায়ের কোন কর্ম ফলে এটা হয় না, এর সাথে মাছকাটা বা চন্দ্রগ্রহণ বা সূর্য্যগ্রহণের কোন সম্পর্ক ণেই এবং কারো অভিশাপের কারনেও এটি হয় না ।
” el_class=”” el_style=”” responsive=””][/bt_dropdown][bt_hr top_spaced=”topSmallSpaced” bottom_spaced=”bottomSmallSpaced” transparent_border=”noBorder” el_class=”” el_style=”” responsive=””][/bt_hr][bt_dropdown title=”শিশুকে খাওয়ানোর ক্ষেত্রে কোনও সমস্যা থাকবে কি ?” dd_content=”• ঠোঁটকাটা বা তালুকাটা শিশুদের মায়ের দুধ খেতে সমস্যা হয় । কারন তারা মুখ বন্ধ করতে পারে না, ফলে মুখের ভিতরে দুধ টেনে নেয়ার জন্য প্রয়োজনীয় চাপ সৃষ্টি করতে পারে না । এ ধরেনে শিশুদের নাক দিয়ে খাবার ও পানি বেরিয়ে আসতে পারে । কারন নাক ও মুখগহ্বরের মাঝে দেয়াল হিসাবে কাজ করে তালু । এ দেয়াল যখন কোন ছিদ্র বা ফাটল থাকে তখন খাদ্যদ্রব্য যে পথে ভিতরে যাওয়ার কথা সে পথে না গিয়ে অন্য পথে বেরিয়ে আসতে পারে । যদি খেতে গিয়ে কোন খাবার শিশুর নাক দিয়ে বেরিয়ে আসে এবং কাশতে থাকে, তাহলে ভয় পাবে না । আরকম ক্ষেত্রে আপনি অবশ্যই শান্ত এবং স্থির থাকবেন ।
• এ সমস্যার কারণে যথেষ্ট পরিমান খাবার ও পানি খেতে না পারার ফলে শিশু অপুষ্টিতে আক্রান্ত হতে পারে এবং শিশুকে খাওয়াতে প্রচর সময়ের প্রয়োজন হয় ।
” el_class=”” el_style=”” responsive=””][/bt_dropdown][bt_hr top_spaced=”topSmallSpaced” bottom_spaced=”bottomSmallSpaced” transparent_border=”noBorder” el_class=”” el_style=”” responsive=””][/bt_hr][bt_dropdown title=”কিভাবে খাওয়াবেন ? শিশুকে সঠিক উপায়ে খাওয়ানোর জন্য কিছু পরামর্শ” dd_content=”• শিশুকে খাওয়ানোর জন্য সুনির্দিষ্ট কোন উপায় নেই । ফলে শিশু ও মায়ের জন্য উপযোগী উপায় চিহ্নিত করার পূর্বে কয়েকটি উপায় পরীক্ষামূলকভাবে যাচাই করলে সঠিক উপায়টি নির্বাচন করা সহজ হয় ।
• শিশুকে স্তন পান করানো সম্ভব হতে পারে । তবে আপনার শিশু হয়তো একটু বেশি ধীরে চুষে খাবে এবং খাওয়ার সময় একটু বেশি লাগবে । ধৈর্য ধরতে হবে । তার হয়তো স্তন চুষতে সমস্যা হতে পারে । যদি শিশু বকের দুধ টেনে খেতে না পারে তাহলে বকের থেকে দুধ বের করে নিয়ে চামচে করে দিতে পারেন । শিশুকে হুবহু বসার ভঙ্গিতে (৪৫ ডিগ্রী) মাথা উপরের দিকে ধরতে হবে, তারপর চামচ বা ফিডার থেকে দুধ ঢালতে হবে জিভের পিছন দিকে । এতে দুধ নাক দিয়ে বের হবে না এবং ফুস্ফুসেও যাবার সম্ভাবনা কমে যাবে ।
• স্তনপানের পাশাপাশি শিশুকে চামচ ও বোতল দিয়েও দুধ খাওয়াতে হবে । দুধের বোতলের নিপলের ছিদ্র বড় করে দিয়ে দুধ সহজে বের হতে পারবে ফলে শিশুকে মুখের ভিতর দুধ নেয়ার জন্য বেশি কষ্ট হবে না । যে বতলে চাপ প্রয়োগ করে দুধ বের করা যায়, সে ধরনের বোতল ব্যবহার করে শিশুর মুখে পরিমাণমত দুধ সরবরাহ করা সম্ভব । খাওয়ানোর কাজে ব্যবহার হবে একটি কাপ অথবা বোতলের সঙ্গে একটি চামচ । চামচে করে খাওয়ানোর কাজটা হবে খুব ধীরে, অন্তত, যতদিনা না ঠোঁট বা তালুর বিভক্তি সেরে যায়, ততদিন চলবে এ খাওয়ানোর ব্যবস্থা ।
• কখনো অনেকটা খাবার একসঙ্গে শিশুর মুখে দিয়ে দিবেন না, তাতে দম বন্ধ হয়ে যেতে পারে । দীর্ঘ সময় নিয়ে ধীরে ধীরে খাওয়ালে শিশু ক্লান্ত হয়ে পড়তে পারে, কাজেই অল্প পরিমাণে খাওয়াবেন এবং অল্প সময়ের ব্যবধানে ঘন ঘন খাওয়াবেন ।
• খাওয়ানোর সময় শিশুকে সোজা ভাবে বসানো খুবেই গুরুত্বপূর্ণ । এর ফলে দুধ শিশুর ফুস্ফুসে বা নাকের নালী অথবা বাইরে বের হয়ে আসার সম্ভাবনা অনেক কমে যায় ।
• যেহেতু শিশুর ঠোঁট বন্ধ করার স্মস্যা থাকে তাই খাওয়ানোর সময় শিশুর পেটে প্রচুর বাতাস ঢুকে । এটি প্রতিরোধ করার জন্য শিশুকে সোজাভাবে বসিয়ে চামচ/স্তনের বোঁটা মুখগহ্বরে যতোটা সম্ভব ভিতরে দিতে হবে । এছাড়াও খাওয়ানোর সময় খাওয়ানোর শেষে শিশুর পেট থেকে বাতাস বের করে দিতে হবে ।
” el_class=”” el_style=”” responsive=””][/bt_dropdown][bt_hr top_spaced=”topSmallSpaced” bottom_spaced=”bottomSmallSpaced” transparent_border=”noBorder” el_class=”” el_style=”” responsive=””][/bt_hr][bt_dropdown title=”শিশুকে কি খাওয়াবো ?” dd_content=”শিশুর বয়স ৬ মাস পর্যন্ত শুধু দুধ খাওয়াবেন । শিশুর বয়স ৬ মাস পর থেকে প্রতিদিন ১ চা চামচ মধু খাওয়াবেন । এছাড়া ভাত, মাছ/মাংস, ডিম, সবজি, মসুরের ডাল এবং পরিমান মতো তেল মিশিয়ে ঘন্ট তৈরী করবেন এবং অল্প অল্প করে খাওয়াবেন । তাহলে বাচ্চা অপুষ্টিতে ভুকবে না এবং অপারেশনের জন্য অজ্ঞান করতেও কোন অসুবিধা হবে না । তালুকাটা শিশুকে আধা শক্ত খাবার দেয়া আরোও ভালো, কারন তা নাক দিয়ে বেরিয়ে আসার আশঙ্কা কম ।” el_class=”” el_style=”” responsive=””][/bt_dropdown][bt_hr top_spaced=”topSmallSpaced” bottom_spaced=”bottomSmallSpaced” transparent_border=”noBorder” el_class=”” el_style=”” responsive=””][/bt_hr][bt_dropdown title=”শিশুর নাক দিয়ে ঘন ঘন সর্দি ঝরে কেন ?” dd_content=”তালুকাটা শিসুর নাক দিয়ে গন গন সর্দি ঝরতে পারে । এর কারন হলো, খাওয়ার সময় খাদ্যপদার্থ নাকের গর্তের মধ্যে ঢুকে যায় । এই খাদ্যবস্তু নাকের গর্তে থেকে সেখানে প্রদাহ সৃষ্টি করে, ফলে সেখানটা ঘায়ের সৃষ্টি হয় । তবে এর জন্য কারো উদ্বিগ্ন হওয়ার প্রয়োজন নেই । যদি খনো শিশুর শ্বাসকষ্ট দেখা যায় তখন চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া ভালো ।” el_class=”” el_style=”” responsive=””][/bt_dropdown][bt_hr top_spaced=”topSmallSpaced” bottom_spaced=”bottomSmallSpaced” transparent_border=”noBorder” el_class=”” el_style=”” responsive=””][/bt_hr][/bt_column][/bt_row][/bt_section]

[bt_section layout=”boxed” top_spaced=”topSemiSpaced” bottom_spaced=”bottomSemiSpaced” skin=”dark” full_screen=”no” vertical_align=”inherit” divider=”no” back_image=”” back_color=”#0da8bc” back_video=”” video_settings=”” parallax=”” parallax_offset=”” animation=”” animation_back=”” animation_impress=”” el_id=”” el_class=”” el_style=”” responsive=””][bt_row][bt_column width=”1/1″ align=”center” vertical_align=”inherit” border=”no_border” cell_padding=”default” animation=”no_animation” text_indent=”no_text_indent” highlight=”no_highlight” background_color=”” opacity=”” inner_background_color=”” background_image=”” el_class=”” el_style=””][bt_image image=”” caption_text=”” size=”” shape=”square” url=”/surgery” target=”_self” hover_type=”btSimpleHoverType” el_class=”” el_style=”max-width: 195px;” responsive=””][/bt_image][bt_hr top_spaced=”topSmallSpaced” bottom_spaced=”not-spaced” transparent_border=”border” el_class=”” el_style=”” responsive=””][/bt_hr][/bt_column][/bt_row][bt_row el_class=”” el_style=”margin-left: -45px; margin-right: -45px;” responsive=””][bt_column width=”1/3″ align=”left” vertical_align=”inherit” border=”btRightBorder” cell_padding=”btDoublePadding” animation=”no_animation” text_indent=”no_text_indent” highlight=”no_highlight” background_color=”” opacity=”” inner_background_color=”” background_image=”” el_class=”” el_style=””][bt_hr top_spaced=”not-spaced” bottom_spaced=”bottomSemiSpaced” transparent_border=”noBorder” el_class=”” el_style=”” responsive=””][/bt_hr][bt_header superheadline=”In short words” headline=”Lovely Smile” headline_size=”medium” dash=”bottom” dash_style=”btAlternateDash” subheadline=”We adorn sweet smile” el_class=”” el_style=””][/bt_header][bt_hr top_spaced=”not-spaced” bottom_spaced=”not-spaced” transparent_border=”noBorder” el_class=”” el_style=”” responsive=””][/bt_hr][bt_text]

Care and counselling for the children with cleft lip and palate as birth defect.

[/bt_text][bt_hr top_spaced=”not-spaced” bottom_spaced=”bottomSmallSpaced” transparent_border=”noBorder” el_class=”” el_style=”” responsive=””][/bt_hr][bt_icons][bt_icon icon=”fa_f09a” icon_title=”” icon_type=”btIcoFilledType” icon_color=”btIcoDefaultColor” icon_size=”btIcoSmallSize” icon_animation=”” icon_outline=”” url=”” target=”no_target” el_class=”” el_style=””][/bt_icon][bt_icon icon=”fa_f099″ icon_title=”” icon_type=”btIcoFilledType” icon_color=”btIcoDefaultColor” icon_size=”btIcoSmallSize” icon_animation=”” icon_outline=”” url=”” target=”no_target” el_class=”” el_style=””][/bt_icon][bt_icon icon=”fa_f0e1″ icon_title=”” icon_type=”btIcoFilledType” icon_color=”btIcoDefaultColor” icon_size=”btIcoSmallSize” icon_animation=”” icon_outline=”” url=”” target=”no_target” el_class=”” el_style=””][/bt_icon][bt_icon icon=”fa_f231″ icon_title=”” icon_type=”btIcoFilledType” icon_color=”btIcoDefaultColor” icon_size=”btIcoSmallSize” icon_animation=”” icon_outline=”” url=”” target=”no_target” el_class=”” el_style=””][/bt_icon][bt_icon icon=”fa_f0d5″ icon_title=”” icon_type=”btIcoFilledType” icon_color=”btIcoDefaultColor” icon_size=”btIcoSmallSize” icon_animation=”” icon_outline=”” url=”” target=”no_target” el_class=”” el_style=””][/bt_icon][/bt_icons][bt_hr top_spaced=”not-spaced” bottom_spaced=”bottomSmallSpaced” transparent_border=”noBorder” el_class=”” el_style=”” responsive=””][/bt_hr][/bt_column][bt_column width=”1/3″ align=”left” vertical_align=”inherit” border=”no_border” cell_padding=”btDoublePadding” animation=”no_animation” text_indent=”no_text_indent” highlight=”no_highlight” background_color=”” opacity=”” inner_background_color=”” background_image=”” el_class=”” el_style=””][bt_hr top_spaced=”not-spaced” bottom_spaced=”bottomSemiSpaced” transparent_border=”noBorder” el_class=”” el_style=”” responsive=””][/bt_hr][bt_header superheadline=”” headline=”About us” headline_size=”medium” dash=”bottom” dash_style=”btAlternateDash” subheadline=”” el_class=”” el_style=””][/bt_header][bt_hr top_spaced=”not-spaced” bottom_spaced=”not-spaced” transparent_border=”noBorder” el_class=”” el_style=”” responsive=””][/bt_hr][bt_row_inner][bt_column_inner width=”1/2″][bt_custom_menu menu=”footer-about-menu” el_class=”btTwoColFooterMenu” el_style=””][/bt_custom_menu][bt_hr top_spaced=”not-spaced” bottom_spaced=”bottomSmallSpaced” transparent_border=”noBorder” el_class=”” el_style=””][/bt_hr][/bt_column_inner][bt_column_inner width=”1/2″][bt_custom_menu menu=”footer-services-menu” el_class=”btTwoColFooterMenu” el_style=””][/bt_custom_menu][bt_hr top_spaced=”not-spaced” bottom_spaced=”bottomSmallSpaced” transparent_border=”noBorder” el_class=”” el_style=””][/bt_hr][/bt_column_inner][/bt_row_inner][/bt_column][bt_column width=”1/3″ align=”left” vertical_align=”inherit” border=”btLeftBorder” cell_padding=”btDoublePadding” animation=”no_animation” text_indent=”no_text_indent” highlight=”no_highlight” background_color=”” opacity=”” inner_background_color=”” background_image=”” el_class=”” el_style=””][bt_hr top_spaced=”not-spaced” bottom_spaced=”bottomSemiSpaced” transparent_border=”noBorder” el_class=”” el_style=”” responsive=””][/bt_hr][bt_header superheadline=”” headline=”Subscribe” headline_size=”medium” dash=”bottom” dash_style=”btAlternateDash” subheadline=”” el_class=”” el_style=””][/bt_header][bt_hr top_spaced=”not-spaced” bottom_spaced=”not-spaced” transparent_border=”noBorder” el_class=”” el_style=”” responsive=””][/bt_hr][bt_text]

Sign up for Lovely Smile newsletter to receive all the news offers and discounts from Lovely Smile Team.

[/bt_text][bt_hr top_spaced=”not-spaced” bottom_spaced=”bottomSmallSpaced” transparent_border=”noBorder” el_class=”” el_style=”” responsive=””][/bt_hr][bt_text][contact-form-7 id=”1483″ title=”Newsletter footer subscription”][/bt_text][bt_hr top_spaced=”not-spaced” bottom_spaced=”bottomSmallSpaced” transparent_border=”noBorder” el_class=”” el_style=””][/bt_hr][/bt_column][/bt_row][/bt_section]

Copyright by lovelysmile.org.bd 2019. All rights reserved.